কলকাতা থেকে নিউজ দাতা মনোয়ার ইমাম।।

আজ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার বারুইপুর জেলা পুলিশের ক্যানিং থানার পুলিশ ধর্মতলা থেকে গ্রেপ্তার করল ক্যানিং থানার ট্রিপল খুনের আসামির ভাগ্নে মুরসোলিম কে। তার কাছ থেকে পাওয়া যায় একটি লোড করা পিস্তল ও তাজা কার্তুজ। সাথে সাথে গ্রেপ্তার করা হয়েছে মুরসোলিম মোল্লার টোটো গাড়ির চালক আবদুল রহমান লস্কর কে।

এদিন আগে থেকেই খবর ছিল ক্যানিং থানার ট্রিপল খুনের আসামির ভাগ্নে মুরসোলিম মোল্লা একটি টোটো গাড়ি করে এলাকা ছাড়ছে। তাই গত ৭, ই, এপ্রিল মাসে ক্যানিং থানার ধর্মতলা এলাকায় তৃনমূল দলের তিন নেতা কে খুন করে পালিয়ে যায় মূল আসামি রফিকুল ইসলাম সরদার। এই ঘটনার পর দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে স্হানীয় মানুষজন এবং তৃনমূল দলের রাজ্যের নেতৃত্ব।

এই খুনের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার ক্যানিং পূর্বে র বিধায়ক ও পশ্চিম বাংলার বিধান সভার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান ও সুন্দর বন উন্নয়ন বোর্ড এর চেয়ারম্যান ও তৃনমূল দলের অন্যতম সাধারণ সম্পাদক শওকাত মোল্লা। এরপর মোট ছয়জন কে গ্রেপ্তার করে বারুইপুর জেলা পুলিশ। তার পর থেকে রফিকুল ইসলাম সরদার কে গ্রেপ্তার করতে চিরুনি তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে বারুইপুর জেলা পুলিশের বিশেষ টিম।

তদন্ত করতে নামে সি আই ডি। আজ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আগে ভাগেই ক্যানিং থানার ধর্মতলা কাছে রাস্তার উপর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে মুরসোলিম মোল্লা কে। তাকে গ্রেফতার করে ক্যানিং থানার এ এস আই রবিন পাল ও এ এস আই রাজীব ভট্টাচার্য। তারা ধর্মতলা র বেলেগাছি র কাছে মেন রাস্তার উপর থেকে টোটো গাড়ি থামিয়ে ধরে ফেলে। ধৃতদের বারুইপুর জেলা আদালতে তোলা হবে বলে জানা গেছে। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসেন বারুইপুর জেলা পুলিশের জোনাল সাহেব ইন্দ্রজিৎ বসু আই পি এস সহ ক্যানিং থানার পুলিশ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.