নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা এলাকার হাজীগঞ্জ থেকে দুষ্কৃতিকারী চক্রের ৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১১।

শহরের খানপুর,তল্লা,কিল্লারপুল, হাজিগঞ্জ, পানির কল, এমসার কেস ও পাঠানটুলি এই এলাকাগুলিতে দীর্ঘদিন যাবত এই বাহিনী ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছে র‍্যাব- ১১ কর্তিক গ্রেপ্তার হওয়ার কারণে এলাকায় স্বস্তি নেমে এসেছে এলাকাবাসী আনন্দিত।

গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানা যায় যে, কতিপয় দুষ্কৃতিকারীদল পরিকল্পিতভাবে ছিনতাই ও চাঁদা দাবীর উদ্দেশ্যে দলগতভাবে শক্তির মহড়া, দাপট প্রদর্শনসহ গুরুতর ধর্তব্য অপরাধ সংঘটন করার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানাধীন হাজীগঞ্জ এলাকায় অবস্থান করছে। এরই সূত্র ধরে অদ্য ১৪ মে ২০২২ ইং তারিখে র‌্যাব-১১, সিপিসি-১, নারায়ণগঞ্জ এর একটি আভিযানিক দল নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানাধীন হাজীগঞ্জ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে দুষ্কৃতিকারী চক্রের সক্রিয় ০৬

সদস্য ১। মোঃ রফিকুল ইসলাম সানি (৩২), পিতা-মৃত জালাল উদ্দিন, মাতা-লাখি বেগম, সাং-হাজীগঞ্জ এম সার্কেস, থানা-সদর মডেল, জেলা-নারায়ণগঞ্জ, ২। মোঃ সাগর (৩৬), পিতা-মৃত বদর উদ্দিন, মাতা-সেতারা বেগম, সাং-তল্লা, থানা-সদর মডেল, জেলা-নারায়ণগঞ্জ, ৩। মোঃ রাকিব হোসেন (৩৮), পিতা-চুন্নু মিয়া, মাতা-আয়েশা বেগম, সাং-মাঠ পাড়া, থানা-মুন্সিগঞ্জ সদর, জেলা-মুন্সিগঞ্জ, এ/পি-এসিআই পানির কল, মৃত বাচ্ছু মিয়ার মেয়ের জামাই, থানা-সিদ্ধিরগঞ্জ, জেলা-নারায়ণগঞ্জ, ৪। মোঃ সজল (২৮), পিতা-মোঃ সারজাহান ভুট্টু, মাতা-খুকি বেগম, সাং-হাজীগঞ্জ এম সার্কেস, থানা-সদর মডেল, জেলা-নারায়ণগঞ্জ, ৫। মোঃ রাকিবুল আলম সজীব (২৯), পিতা-মৃত নুরুল হুদা বেনু, মাতা-হাসিনা বানু, সাং-হাজীগঞ্জ এম সার্কেস, থানা-সদর মডেল, জেলা-নারায়ণগঞ্জ এবং ৬। মোঃ শরীফ হোসেন (২৪), পিতা-আঃ সালাম মুন্সি, মাতা-আমিরুন নেছা, সাং-হাজীগঞ্জ এম সার্কেস, থানা-সদর মডেল, জেলা-নারায়ণগঞ্জ’দেরকে চাঁদাবাজির নগদ ১১,৯০০/- টাকা, প্লাষ্টিকের পাইপ-০২টি, কাঠের লাঠি-০২টি এবং লোহার পাইপ-০২টি উদ্ধার সহ গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। সূত্রে জানা যায় যে, এই চক্রটি নারায়নগঞ্জ শহরের একটি প্রভাবশালী পরিবারের লোক দাবী করে স্হানীয় এলাকা সহ শহরের বিভিন্ন স্হানে চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসা করে যাচ্ছে বিরদর্পে।তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ, ফতুল্লা ও সদর মডেল থানায়,হত্যা, গুম, চাঁদাবাজি, অপহরন,মারধোর সহ মাদকের একাধিক মামলা আছে বলেও লোক মুখে যানা যায়।

৬জন গ্রেফতার হলেও তাদের দলীয় নেতা ও অনেক সহযোগীকে গ্রেফতারের দাবী অনেক ভুক্তভোগীদের।
তারা এতটাই ভয়ংকর যে তাদের অস্রের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না। দিনে ও রাতে তারা সবসময় সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে এলাকায় মহরাদিয়ে থাকে। গ্রেফতারের বিষয়টি জানতে পেরে সকলেই আশাবাদী পূর্বের একাধিক মামলা থাকলেও অনেক মামলায় তারা গ্রেফতার না হয়ে পলাতক রয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে স্হানীয় প্রশাসন যেনো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করে এমনটাই দাবি সকলের

Leave a Reply

Your email address will not be published.