নিজস্ব সংবাদদাতা:

নগরীর পাইকপাড়ায় রিপন মীর নামের এক হোসিয়ারী ব্যবসায়ীকে প্রতারণা করে টাকা দাবী করে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি জামানত হিসেবে রাখা ব্লাঙ্ক চেকও ফেরত দিচ্ছে না রিপন মিয়া নামের ওই ব্যক্তি।
শুক্রবার (৪ জুন) এ ঘটনায় রিপন মীর নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, আমি মোঃ রিপন মীর (৪৫) পিতা মোঃ নুর হোসেন মীর, সাং হোল্ডিং নং-৩১৯ (পুরাতন) পাইকপাড়া বড় কবরস্থান, থানা ও জেলা নারায়ণগঞ্জ আপনার থানায় হাজির হইয়া বিবাদী মোঃ রিপন মিয়া (৪৬) পিতা মৃত আলেক মিয়া, সাং হোল্ডিং নং-৩১৮ পাইকপাড়া বড় কবরস্থান, থানা ও জেলা নারায়ণগঞ্জ এর বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ করিতেছি যে, আমার নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানাধীন পাইকপাড়া বড় কবরস্থান সংলগ্ন “নুর নয়ন হোসিয়ারী এন্ড গার্মেন্টস” নামক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বিবাদী মোঃ রিপন মিয়া আমার প্রতিবেশী।

উক্ত বিবাদী এলাকায় সুদের ব্যবসা করে। আমার ব্যবসায়িক প্রয়োজনে উক্ত বিবাদীর নিকট থেকে ৩,০০,০০০/- টাকা সুদে নেই। যাহার প্রেক্ষিতে জামানত হিসেবে আমার নিজ নামে থাকা ডাচ্ বাংলা ব্যাংক লিঃ এর অধিনে উক্ত বিবাদীকে ০২টি ব্লাঙ্ক চেক প্রদান করি। যাহার চেক নং- ৪০১৩৭১৬ ও ৪৮৬২৮৮১। উক্ত বিবাদীর নিকট থেকে সুদে নেওয়া টাকাগুলোর মধ্যে প্রায় ২০,০০,০০০/- (বিশ লক্ষ) টাকা সুদ দেই এবং আসল টাকা হতে ২,০০,০০০/- টাকা ফেরৎ প্রদান করি। কিন্তু বিবাদী আমার চেকগুলো ফেরৎ দেয় নাই।

এক পর্যায়ে তার সঙ্গে আমার হোসিয়ারী মালামালের ব্যবসা শুরু হয়। যাহার প্রেক্ষিতে সে আমার নিকট থেকে বিভিন্ন সময় মালামাল ক্রয় করে নেয়। গত ০৬/০৫/২০১৯ইং তারিখে আমার ঢাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাউচার এর মাধ্যমে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকার বড় চায়না মালামাল নেয়। যাহার প্রেক্ষিতে তাকে আমি ভাউচার প্রদান করি। কিন্তু ভাউচারের কার্বন কপি আমার নিকট ছিল। পরবর্তীতে উক্ত বিবাদী আমার দোকানের ভাউচারে ৩,৫০,০০০/- (তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা লিখিয়া রাখে এবং সে আমার নিকট ৩,৫০,০০০/- (তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা পাবে বলে জানায়। এক পর্যায়ে উক্ত বিবাদীর নিকট থাকা আমার দুইটি ব্লাঙ্ক চেকে ৩,৫০,০০০/- (তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা লিখিয়া দাবীসহ হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদান করে।

গত ১২/০৫/২০২১ইং তারিখ সকাল অনুমান ১০.৩০ ঘটিকার সময় উক্ত বিবাদী আমার বাসায় গিয়ে আমার নিকট ৩,৫০,০০০/- (তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা দাবী করে। কিন্তু আমার নিকট কোন টাকা পাবে না বলে জানালে সে আমাকে গালি-গালাজ সহ আমার দেওয়া ব্লাঙ্ক চেক দিয়ে মিথ্যা মামলা করে আমাকে জেল খাটাবে বলে বিভিন্ন ধরনের হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদান করে চলে যায়। প্রকৃত পক্ষে উক্ত বিবাদী আমার নিকট কোন টাকা পাবে না এবং আমার ভাউচার ও ব্লাঙ্ক চেক দিয়ে ৩,৫০,০০০/- (তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা বসিয়ে আমার সঙ্গে প্রতারনা করতঃ আমাকে হয়রানী করিয়া আসিতেছে।
এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তবে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *