আনোয়ার হোসেন আকাশ,
রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা জমে উঠছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে। আগামী ২৯ মে অনুষ্ঠিত হবে তৃতীয় ধাপের ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। প্রতীক বরাদ্দের পরপরই নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছেন প্রার্থীরা। শুরু করেছেন জনসংযোগ। ইতোমধ্যে অনেক স্থানে প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনেরও অভিযোগ উঠেছে।

তৃতীয় দফায় অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী আখতারুল ইসলামের মোটরসাইকেল মার্কার নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে। রবিবার (১৯ মে) সকালে পীরগঞ্জ উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের ভাবনাগঞ্জ বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে এলাকা উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে সেখানে পুলিশ মোতায়েরন করা হয়েছে।

উপজেলার কোষারানীগঞ্জ ইউনিয়নের মোটর সাইকেল মার্কার সমন্বয়কারী শাহ আলম জানান, শনিবার সৈয়দপুর ইউনিয়নের ভাবনাগঞ্জ বাজারে মোটরসাইকেল মার্কার অফিস স্থাপন করা হয়। রবিবার সকাল ১১ টায় দিকে নেতাকর্মীরা অফিস রেখে ভোট চাওয়ার জন্য পাশের গ্রামে যায়। এ সুযোগে কোষা- মন্ডলপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে জাহাঙ্গীর সহ কয়েকজন মোটরসাইকেল মার্কার অফিস ভাঙচুর ও পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলে পালিয়ে যায়।

ঘটনাটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে মোটরসাইকেল মার্কার সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। খবর পেয়ে পীরগঞ্জ
থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং সেখানে অবস্থান করছেন।

মোটরসাইকেল মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী আখতারুল ইসলামের অভিযোগ, ঘোড়ামার্কার প্রার্থী রেজওয়ানুল হক বিপ্লবের উস্কানিতে তার নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করা হয়েছে। বিষয়টি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে দেখার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

তবে ঘোড়া মার্কার প্রার্থী রেজওয়ানুল হক বিপ্লব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, অফিস ভাংচুড় ঘটনার সাথে তার নিজের বা তার কোন কর্মী সমর্থকের সংশ্লিষ্টতা নেই।

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রমিজ আলম জানান, অফিস ভাঙচুরের ঘটনার বিষয়ে শুনেছি, এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি, তবে সেখানে পুলিশ মোতায়ন আছে। অভিযুক্ত কাউকে পেলে গ্রেপ্তার করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *