মোঃ আইনুল হক পীরগঞ্জ ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র আনোয়ার হোসেনের অপসারণের দাবী তুলেছেন উক্ত পৌরসভার ৯ জন কাউন্সিলর।

ক্ষমতার অপব্যবহার, কাউন্সিলরদের সাথে অসদাচারণ, সরকারি ত্রাণ বিতরণে স্বজনপ্রীতি ও পৌরসভার উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি সহ নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে
গত ৬ জুন এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসক সহ পৌর মেয়রের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন কাউন্সিলররা।

কাউন্সিলরদের অভিযোগ, দায়িত্ব নেওয়া পৌর পরিষদের প্যানেল মেয়র আনোয়ার হোসেন পৌরসভার অন্যান্য কাউন্সিলদের সাথে প্রায়ই অসদাচারণ করে আসছেন।
শহরের রঘুনাথপুর মাষ্টার মোড় এলাকায় প্যানেল মেয়রের মিল চাতালের সামনে পাঁকা রাস্তার ধারে পৌরসভা কর্তৃক নির্মাণকৃত একটি ডাস্টবিন সিদ্ধান্ত ছাড়াই ভেঙ্গে এর মালামাল আত্মসাৎ করেছেন।

ইতিমধ্যে তিনি নিজেকে তিনি মেয়র হিসেবে ভাবতে শুরু করেছেন। পৌরসভায় মাষ্টাররুলে কর্মরত কর্মচারীদের কাছ থেকে অবৈধ ভাবে টাকা আদায়ের চেষ্টা করছেন। এমনিক পৌরসভার কর বিভাগের এক কর্মচারীকে পদোন্নতি দেওয়ার কথা বলে বিষ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
এ বিষয়ে এলাকার লোকজন তার বিরুদ্ধে পৌরসভায় পৃথক ভাবে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছড়াও তিনি পৌর মেয়র কে কু মন্ত্রণা দিয়ে ভুল পথে পরিচালনা করছেন বলেও অভিযোগ কাউন্সিলদের।

পৌরসভার ১২ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ৩ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর সহ ৯ জন কাউন্সিলর প্যানেল মেয়রের অপসারণের দাবী জানিয়ে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন।
পৌর কাউন্সিলর মাহাফুজ আলম জানান, আনোয়ার হোসেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই কাউন্সিলরদের সাথে অসৌজন্য মূলক আচরণ করেই চলছেন। শুধু তাই নয় পৌরসভার মেয়রকে কু মন্ত্রণা দিয়ে পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলছেন।

পৌর কাউন্সিলর এইচ এম কামরুজ্জামান, পৌরসভার বিভিন্ন রকমের উন্নয়ন মূলক কাজ বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছেন প্যানেল মেয়র আনোয়ার হোসেন। এমনকি সরকারি ত্রাণ সুষ্ঠ বন্টন না করে নিজস্ব লোকজনকে দিচ্ছেন। এতে পৌরসভার কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।কাউন্সিলদের অভিযোগ প্রসঙ্গে প্যানেল মেয়র আনোয়ার হোসেন মুঠোফোনে জানান, এ ব্যাপারে এখন আমি কিছু বলতে পারবোনা। মেয়র সহ বলবো।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা ইকরামুল হক জানান, পৌরসভার কাউন্সিলদের ভোটেই আনোয়ার হোসেন কে প্যানেল মেয়রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। হঠাৎ করেই তাকে বাদ দেওয়ার জন্য কিছু কাউন্সিলর কেন উঠে পড়ে লেগেছেন তা খতিয়ে দেখতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *