ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটা,( খুলনা) প্রতিনিধি ঃ

জেলার বটিয়াঘাটায় মজিববর্ষে ১৮০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মৌলিক চাহিদার অন্যতম তৃতীয় চাহিদা জমির কাগজপত্র ও গৃহ পেয়ে সুফলভোগীরা মহা আনন্দে রয়েছে ।

গতকাল রবিবার বেলা ১১ টায় স্থানীয় সুরখালী ইউনিয়নে রায়পুর মৌজায় ২০টি সুফলভোগী গৃহহীন পরিবারের ঘর পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম । এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল হাই সিদ্দিকী, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ এমদাদুল হক, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, কোষাধ্যক্ষ মোঃ মনিরুজ্জামান, ইউপি চেয়ারম্যান সরদার আব্দুল হাদী, ইউপি সদস্য মাসুদ রানা, সাকিব সরদার সহ সুফলভোগী পরিবারের সদস্যদবৃন্দ ।

মুজিব বর্ষে বিশ্ব ‌মানবতার জননী দেশরত্ন শেখ হাসিনার গৃহহীন পরিবারের জন্য জমি ও গৃহ প্রদান বাস্তবে রূপ দিতে উপজেলা প্রশাসন স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করেন নিরলশ ভাবে ১ লক্ষ,৭০ হাজার টাকায় ঘর গুলো নির্মাণ পূর্বক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে বরাদ্দ দিয়েছেন । বর্তমানে সুফলভোগীরা ঘর বরাদ্দ পেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে বসবাস করছে ।

এব্যাপারে ভূক্তভোগীদের কয়েক জনের সাথে জিজ্ঞাসা করলে বলেন, আমরা বটিয়াঘাটার বারোআড়িয়া বাজারে প্রায় ১৫ টি পরিবার একটি পরিত্যক্ত গোডাউনে দীর্ঘ ১০-১৫ বছর যাবৎ মানবেতর জীবন-যাপন করছিলাম ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলামের সুদৃষ্টি ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার ঘর ও জমি পেয়ে আমরা ভিশন খুশি হয়েছি । আমরা শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করছি । এব্যাপারে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জানান, আমরা মিস্ত্রী খরচ বাদে ওই বরাদ্দের টাকায় ঘর যাতে সুন্দর ও টেকসই হয় সে লক্ষ্যে নিজেরা নির্মাণ কমিটির মাধ্যমে মালামাল ক্রয় করে ঘর গুলো নির্মাণ করা হয়েছে ।

যে কারনে ঘর গুলো সুন্দর ও টেকসই হয়েছে । এব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল হাই সিদ্দিকী জানান, মুজিব বর্ষের বিশেষ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে ১৮০টি পরিবারের প্রত্যেক পরিবারকে ২ শতাংশ খাস নির্বাচন পূর্বক জমির দলিল, নামপত্তন, খাজনা সহ মুজিব বর্ষের প্রধানমন্ত্রীর ফাইল সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দেয়া হয়েছে ।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিতে সকলে মিলে নিরলসভাবে কাজ করে সঠিক জায়গা নির্বাচন পূর্বক মনোরম পরিবেশে সুন্দর ও টেকসই ভাবে ঘর গুলো নির্মাণ করে সুফলভোগীদের মাঝে জমির কাগজপত্র ও ঘরের চাবি হস্তন্তর করা হয়েছে এবং উক্ত ঘরে সুফলভোগীরা আনন্দে বসবাস করছে ।

তিনি আরো বলেন, সুফলভোগীদের বিদ্যুৎ লাইন, যোগাযোগের রাস্তা ও পানির ট্যাংক এবং গাছের চারা সহ বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা বাস্তবায়ন করা হয়েছে । সব মিলিয়ে এ উপজেলার ঘর গুলো টেকসই ও মনোরম পরিবেশে হওয়ার বাংলাদেশে মধ্যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় অভিজ্ঞ সচেতন মহল । এব্যাপারে মুজিব বর্ষে সুফলভোগী ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের পক্ষ থেকে মুজিব বর্ষের এই প্রকল্প যেন চলমান থাকে সেই আহ্ববান জানিয়েছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *