আনোয়ার হোসেন আকাশ,
রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে স্ত্রীকে মারধরের পরে শশুর-শাশুড়িকে আটকে রেখে মারধরের অভিযোগ উঠেছে জামাই’র পরিবারের বিরুদ্ধে।
জানা গেছে গত শনিবার (১৮ জুন) রাতে এন্তাজুল হক তার স্ত্রী আরজিনাকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বেধরক মারধর করেন।

রবিবার সকালে স্ত্রী আরজিনা বাবা ও মাকে ফোন দিয়ে ডেকে নিয়ে আসে জামাই এন্তাজুল।
শুশুর শ্বাশুড়ি জামাইয়ের বাড়িতে গিয়ে তার কাছে ডেকে আনার ঘটনা জানতে চাইলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং তাদেরকে আটকে রেখে জামাইসহ তার ভাই ভাতিজারা তাদের মারধর করে।

বর্তমানে এন্তাজুলের স্ত্রী আরজিনা বেগম, শশুর আজহারুল ইসমাল, শ্বাশুড়ি লাকী বেগম গুরুতর আহত অবস্থায় পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।
শশুর আজহারুল ইসলাম জানান তার পকেট থেকে চৌদ্দ হাজার পাঁচশত টাকা ও একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় তার জামাইসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।

অভিযুক্ত জামাই এন্তাজুল হক পীরগঞ্জ
উপজেলার ১০নং জাবরহাট ইউনিয়নের ডাঙ্গীপাড়া গ্রামের মুনিরদ্দিনের ছেলে।
জামাই এন্তাজুলের সাথে কথা বলার জন্য মুঠোফোনে একাধিকার ফোন দিয়েও যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পীরগঞ্জ থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.