মোঃ এন.এইচ. শান্ত, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসেছে, ততই গরম হচ্ছে রাজনীতির মাঠ। সঠিক দিন-ক্ষণ ঠিক না হলেও গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় একটু আগেভাগেই আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেশ তোড়জোড় শুরু হয়েছে।

সকাল থেকে শুরু করে রাত পর্যন্ত – পথে ঘাটে চায়ের দোকানে চলছে নির্বাচনের আগাম প্রচার প্রচারণা। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে নৌকার সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে এম.এ আউয়াল কবীর (বামনডাঙ্গা), এটিএম রেজাউল করিম (সোনারায়), মজিবর রহমান মজি (বেলকা), রেজাউল আলম রেজা (দহবন্দ), আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেল (সর্বানন্দ)’কে ঘিরেই সর্বত্র চলছে আলোচনা।

এম.এ আউয়াল কবীর (১নং বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ):
সরেজমিনে ঘুরে এলাকাবাসীর কাছে জানা যায় যে,এবার ১ নং বামনডাঙ্গা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চান বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ আউয়াল কবীরকে। দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে বর্তমান সরকারের স্বপ্ন পূরণে আউয়ালের বিকল্প নেই বলে জোরদার আলোচনা চলছে মহল্লার অলিতে গলিতে ।

ইতিমধ্যে নৌকার প্রচার-প্রচারণায় অত্র ইউনিয়নে তিনি রয়েছেন সবার শীর্ষে। আউয়াল কবীর জানান, আমি জনগণের খেদমত করতে চাই। সমাজের অবহেলিত জনগোষ্ঠী ও এলাকার মানুষের জন্য কাজ করা আমার স্বপ্ন। এতদিন ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক উদ্যোগে সামাজিক কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করে আসছিলাম।

সেবার পরিধি বাড়াতে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করবো। এটিএম রেজাউল করিম (২নং সোনারায় ইউনিয়ন পরিষদ):
এলাকাবাসী বিশ্বাস করেন সোনারায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সভাপতি এটিএম রেজাউল করিম এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে অত্র অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়ন হবে।

জেলা,উপজেলার রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন ২ নং সোনারায় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে রেজাউল করিম আগামীতে প্রতিনিধিত্ব করলে সোনারায় ইউনিয়ন এর প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব হবে। এটিএম রেজাউল করিম জানান, দেশ যে গতিতে এগিয়ে চলেছে, সে গতিতে ২ নং সোনারায় ইউনিয়নের প্রকৃত উন্নয়ন হচ্ছে না।

অনেকগুলো মৌলিক নাগরিক সুবিধা থেকে এখনও ইউনিয়নবাসী বঞ্চিত। এ সব বিষয় আমাকে খুব যন্ত্রণা দিয়েছে। আমি মনে করেছি, এখানে আরও বৃহত্তর পরিসরে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করার প্রয়োজন রয়েছে।
মোঃ মজিবর রহমান মজি (৪নং বেলকা ইউনিয়ন পরিষদ):
নির্বাচনের সুনির্দিষ্ট দিনঘন ঠিক না হলেও বেলকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজিকে ঘিরে এলাকাবাসীর মধ্যে ঐক্য আরও সুদৃঢ় হচ্ছে বলে জানা গেছে।

ইউনিয়নের সব শ্রেণিপেশার মানুষ একতাবদ্ধ হয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন মজির পক্ষে গণসংযোগ ও মতবিনিময় সভা। গত ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে মজি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন৷ কিন্তু জামাত নেতা বেলকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেও, উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে বঞ্চিত এই চরাঞ্চলবাসী বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মজিবর রহমান মজির কোনো বিকল্প নেই বলে দাবী স্থানীয়দের ।

মজিবর রহমান মজি জানান, বেলকা ইউনিয়নের মানুষরা খুবই সহজ-সরল ও শান্তিপ্রিয় । এই এলাকায় মুসলিম, হিন্দু সম্প্রিতির বন্ধন রয়েছে যুগ যুগ ধরে। রাজনৈতিক জীবনে সব শ্রেণি পেশার মানুষ আমাকে পাশে পেয়েছে । জনগণ আমাকে যখন যেটা বলেছেন, আমি শুনেছি, পারলে উপকার করেছি কিন্তু কারও কোন ক্ষতি করি নি ।

এলাকাবাসী কখনো আমাকে নিরাশ করেনি। জনগণের জন্যই নির্বাচন। জনগণ তরুণ- উদীয়মান পরিশ্রমী ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিতে বিশ্বাসী। আমি আশা করি জনগণ শতভাগ সৎ, নিষ্টাবান ও নির্ভীক, যোগ্য, সর্ম্পূন নির্ভরশীল বলিষ্ট নেতৃত্বকে নির্বাচিত করবে। তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দেবেন এটাই প্রত্যাশা করছি।
মোঃ রেজাউল আলম রেজা (৫নং দহবন্দ ইউনিয়ন পরিষদ):

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ৫নং দহবন্দ ইউনিয়নে এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক রেজাউল আলম রেজার কোন বিকল্প নেই বলে জোরদার আলেচনা চলছে চায়ের দোকানসহ পাড়া-মহল্লার অলিতে-গলিতে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভোটাররা জানান, দহবন্দ ইউনিয়নবাসীর কাঙ্খিত দাবী ইতিপূর্বের নির্বাচিত চেয়ারম্যান পূরন করতে পারেননি। এতে জনগণের সাথে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দূরত্ব বেড়েছে আকাশ ছোঁয়া। রেজাউল আলম রেজা দহবন্দ ইউনিয়নসহ পুরো উপজেলায় জনগণের দুঃখের ভাগিদার হিসেবে পাশে থেকে কাজ করেছেন বলে জানান স্থানীয়রা। রেজাউল আলম রেজা জানান, সাধারণ ভোটাররা বলবে- আমি কতটা যোগ্য এ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীতা পাওয়ার। আমি আমার সাধারণ জনগণের সাড়া নিয়ে নির্বাচনের মাঠে নেমেছি। এলাকাবাসীর দোয়া ও সহযোগীতায় নির্বাচনের মাঠে আছি এবং নির্বাচিত হলে জনগণের সেবক হয়েই পাশে থাকবো। মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে রেজার ভুমিকা কি হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, পুলিশ প্রশাসনের সহযোগীতা করার পাশাপাশি মাদক ও সন্ত্রাসের কুফল সর্ম্পকে প্রতিটি সভা-সমাবেশে আলোচনা করা হবে। আমি মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে জনগণকে ঐক্যবন্ধ থাকার আহবান জানাই। ইভটিজিং, সন্ত্রাস, মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীরা আপনার/আমার ভাই-বোন হতে পারে। তাই তাদের সাথে খারাপ আচারণ বা ঘৃনা না করে সুপথে ফিরিয়ে আনতে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করা হবে। দহবন্দ ইউনিয়ন হবে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত। প্রতিটি গ্রাম হবে শহর স্লোগানে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিকল্পনা অনুযায়ী যেভাবে দেশ এগিয়ে যাবে, তার সাথে সাথে দহবন্দ ইউনিয়ন এগিয়ে যাবে বলে জানান রেজাউল আলম রেজা ।
আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেল (৬ নং সর্বানন্দ ইউনিয়ন পরিষদ):
পুরো সর্বানন্দ ইউনিয়ন জুড়ে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেলের পোস্টার, প্যানা, ফেস্টুন ও ব্যানার শোভা পাচ্ছে। পাড়া-মহল্লা, চায়ের টেবিলসহ বিভিন্ন আড্ডায় আলোচনা হচ্ছে রাসেলকে নিয়ে। এলাকা ঘুরে জানা যায়, সর্বানন্দ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে নৌকার সম্ভাব্য প্রার্থী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রাসেলকে চেয়ারম্যান হিসেবে চাচ্ছে এলাকাবাসী। সাধারণ মানুষের মধ্যে তার আকাশচুম্বি যে জনপ্রিয়তা রয়েছে তাতে তাকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিলে তার বিজয়ী হওয়া সুনিশ্চিত। জেলা উপজেলার প্রবীণ রাজনীতিবিদগণ জানান, প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে রাসেল থেকেছেন সামনের সারিতে। দিয়েছেন সফল নেতৃত্ব। জনবান্ধব, পরীক্ষিত ও লড়াকু সৈনিক তিনি। প্রচলিত রাজনৈতিক ধারায় থাকলেও লোভ লালসার স্রোতে গা ভাসাননি রাসেল। নির্বাচিত হলে ইউনিয়নবাসীর কি কি উন্নয়ন করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেল জানান, প্রথমে কৃষক, মেহনতি ও খেঁটে খাওয়া অসহায় মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করবো। এলাকাবাসীকে সংগে নিয়ে একটি উন্নত,যোগাযোগ ও বাসযোগ্য আধুনিক ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলব। আমার স্বপ্ন, আমি নির্বাচিত হলে আমার ইউনিয়নের সকল হাট- বাজারের ইজারা নিজের অর্থায়নে পরিশোধ করব। তিনি আরো জানান, তৃণমুল পর্যায়ের জনসাধারনের ক্ষুদ্র সেবক হয়ে দীর্ঘদিন যাবত পাশে আছি এবং আগামীতে থাকবো। জনগণ আমার পরিবার। তাদের সুখ-দুঃখ ঘিরে আমার রাজনীতির জীবন। তাদের সাথে অনেক আগেই আমি নির্বাচন বিষয়ে কথাবার্তায় সমর্থন ও সাড়া নিয়ে এ নির্বাচনের মাঠে নেমেছি। এলাকার মেহনতি ও খেঁটে খাওয়া অসহায় মানুষগুলো আমার সাথে আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *