নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা মডেল থানাধীন উত্তর নরসিংপুর মরা খালপাড় এলাকা থেকে ৫০ পুড়িয়া হিরোইনসহ একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার মাদকদ্রব্য বিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনাকালে জিহাদ হোসেন (১৯) নামের ঐ মাদক বিকেতাকে আটক করে ফতুল্লা থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় মাদকদ্রব্য আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার নং-০৮, তাং- ০৫/১২/২০২৩। মামলা সুত্রে জানা যায়, ফতুল্লা মডেল থানার এস আই আজিজুল হক, কনস্টেবল আ. কাদির ও কনস্টেবল ফয়সাল মিয়া গত ০৫ ডিসেম্বর বিকেলে ওয়ারেন্ট তামিল, মাদকদ্রব্য উদ্ধার ও বিশেষ অভিযানে ডিউটি করা কালীন সময়ে ফতুল্লা থানাধীন নরসিংপুর সামসুলের মোড় এলাকায় অবস্থানকালে গোপন সুত্রে সংবাদ পান যে, একই থানাধীন উত্তর নরসিংপুর মরা খালপাড় এলাকায় রাসেলের গারেজের ভিতরে একজন মাদক ব্যবাসায়ী হিরোইনসহ অন্যান্য মাদকদব্য বিক্রি করছে। এই সংবাদের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হলে, একজন মাদক ব্যবসায়ী পালানোর চেষ্টা করে। এসময় পালানোর চেষ্টাকারী জিহাদ হোসেন (১৯)কে আটক করা হয়। তার দেহ তল্লাশী করে ৫০ পুড়িয়া হিরোইন উদ্ধার করা হয়।

এদিকে, জিহাদের গ্রেফতারে সন্তোষ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী। তারা বলেন, এলাকার যুবসমাজকে মাদকের দিকে ঠেলে দিচ্ছে চিহ্নিত অপরাধী একটি চক্র। এই চক্রের মূলহোতা মনিরের ছেলে শাহ আলম, নিজাম, খলিল, লিটন, রাসেল, সাগর। এরাই মূলত জিহাদ সহ অন্যদের শেল্টার দেয়।

তাই জিহাদ গ্রেফতারে সন্তোষ পকাশ করলেও এই অপরাধীদের গেফতার করে যুবসমাজকে মাদকের হাত থেকে বাঁচানোর আহবান জানান এলাকাবাসী। তারা আরও বলেন, শুধু মাদক নয়, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ এহেন কোনো অপরাধ নেই যা এই অপরাধীরা করেনা। তাদের কাছে জিম্মি এই এলাকার মানুষ। নরসিংপুর এলাকাটি বিসিক এলাকার নিকটবর্তী হওয়ায়, এখানে মূলত গামেন্টস সেক্টরের লোকজনই বেশী থাকে। স্থানীয় লোকজনের বসবাস এলাকাটিতে কম হওয়ায়, এই অপরাধীরা বহিরাগত ও শ্রমিক শ্রেণীর লোকজনের উপর নিমম নিযাতন চালায়। তাই অনতিবিলম্বে এই সকল অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা।

এদিকে, গ্রেফতারকারী পুলিশ কর্মকর্তা জানান, জেলা পুলিশ সুপার সারের নিদেশে অপরাধীদের গ্রেফতারে তারা কাজ করছে। কোনো অপরাধীকে ছাড় দেয়া হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *